২০২১ সালের বইমেলায় আসছে ”আঠারো বছর বয়স ভয়ংকর” উপন্যাস

omair34
  • আপডেট টাইম : অক্টোবর ১৩ ২০২০, ১৩:৩৫
  • 666 বার পঠিত
২০২১ সালের বইমেলায় আসছে ”আঠারো বছর বয়স ভয়ংকর” উপন্যাস

রাশিদা বেগম:
২০২১ সালের বই মেলায় আসছে আমার ‘আঠারো বছর বয়স ভয়ংকর’ উপন্যাস। উপন্যাসের অংশবিশেষ তুলে ধরলাম

সানির জীবন থেকে ধীরে ধীরে সব হারিয়ে যাচ্ছে। হাসি, উচ্ছ্বাস, ভালোলাগা, আড্ডা, বইপড়া সবকিছু। রাহার নিষ্পাপ মুখখানি তার সারাক্ষণ চোখে ভেসে উঠে। কল্পনায় ধরা দেয় রাহা। শৈশবের দিনগুলির মতো সে তার সাথে খেলে। হৈচৈ করে। দৌড়ঝাপ হয়।তাকে হাত ধরে টেনে নিয়ে যায় কাবাডি খেলায়।দুজন দুপক্ষে খেলে। সানি সামনে এগোলে রাহা তাকে ঝাপটে ধরে। শক্ত করে ধরে আটকে রাখতে চায়। রাহার বাহুবন্ধনে সানির দম যে কত বন্ধ হয়েছে তা কেবল সে জানে। হেরেছে সানি। জিতেছে রাহা। সেই মধুর সময় পার হয়ে রাহা এখন যৌবনে পা দিয়েছে।বুদ্ধি তার পরিপক্ক হয়েছে। এখন সে উন্মুক্ত বাতাসের মতো স্বাধীন। কাউকে ভয় পায় না।কাউকে পরোয়া করে না।
সে সর্পিল গতিতে সানির কাছে চলে আসে।পেছন থেকে চোখে ধরে। সানি বলে,’আমার চেনা হাত, চেনা স্পর্শ,চেনা ঘ্রাণ। তুমি রাহা। হাত ছাড়ো।
রাহা চোখ ছেড়ে হাসতে হাসতে গলে পড়ে। সে জিঞ্জেস করে, ‘ক্যামনে বুঝলা?’
‘বুঝতে পারি। তুমি যে আমার কাছে আরাধ্য।’
তারপর দুজনে বেডমিন্টন খেলে। রাহার দৌড়ঝাঁপ,এঁকে বেঁকে ভেঙ্গে পড়া, লাফিয়ে লাফিয়ে খেলার ভঙ্গি যেন যৌবনের এক অকারণ ঢং। কল্পনায় রাহাকে এতটুকু পেয়েও সে চরম সুখ ভোগ করে।

মোছাঃ রাশিদা বেগম।
১৯৭৫ সালের ৮ই ডিসেম্বর নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার মন্ডলদিয়া গ্রামে জম্নগ্রহন করেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৫ সালে বাংলায় বি.এ (অনার্স) ও ১৯৯৬ সালে এম.এ করেন।
২০০০ সালে পল্লী উন্নয়ন বোর্ড এ অফিসার পদে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে পাঁচকান্দি ডিগ্রি কলেজে ২০০৪ সালে প্রভাষক পদে যোগদান করেন।
এই পর্যন্ত তার বইসমূহঃ
১/ মেঘরৌদ্র (কবিতার বই)
২/ শেষ দৃশ্য (উপন্যাস)
৩/ ইউটোপিয়া (উপন্যাস)

Please follow and like us:
এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

বিজ্ঞাপন