ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গায় কিন্টারগার্ডেন,সত্য সমাগত মিথ্যা দূরীভূত হবেই ইনশাল্লাহ- বাপ্পি মজুমদার ইউনুস

KHORSHAD ALAM CHOWDHURY
  • আপডেট টাইম : জানুয়ারি ০১ ২০২০, ১০:২২
  • 1031 বার পঠিত
ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গায় কিন্টারগার্ডেন,সত্য সমাগত মিথ্যা দূরীভূত হবেই ইনশাল্লাহ- বাপ্পি মজুমদার ইউনুস
ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গায় কিন্টারগার্ডেন,সত্য সমাগত মিথ্যা দূরীভূত হবেই ইনশাল্লাহ- বাপ্পি মজুমদার ইউনুস
ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গাটিতে যখন কিন্টারগার্ডেন শুরু হয়  তখনো সমাজের কিছু  লোকের আপত্তির মুখে উদ্যোক্তারা  বলেছিলেন আমরা ২/৩ বছরের মধ্যে এখান থেকে চলে যাব। এক পর্যায়ে তারা এটার দায়িত্ব চেয়ে দিয়ে সামাজিকভাবে বৈঠক করে একটি কমিটি করেন দেন। জনাব আবুল খায়ের ও তার সাথে আরও কয়েক জনের আচরণে অতিষ্ঠ হয়ে কমিটির অন্য সদস্যরা এখান থেকে চলে যান। ফলে তারা একতরফাভাবে জায়গাটি দখল করে কিন্টার গার্ডেন স্কুল চালাতে থাকে এবং এটাকে পারিবারিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করে। একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তারা কারও কোন কথা মানেননি । তাই সামাজের অধিকাংশ লোক মনে করেন যে ফোরকানিয়া মাদ্রাসার জায়গাটিতে ফোরকানিয়া মাদ্রাসা থাকুক তারা কিন্টারগার্ডেন তাদের ব্যক্তিগত জায়গায় পরিচালনা করুক। যেহেতু তারা কারো কথা মানেননি তাই সমাজের সচেতন ব্যাক্তি ও জায়গা দানকারীদের একজন উত্তরাধিকার হিসেবে বিষয়টি আমি আইনের দৃষ্টিতে নিয়ে আসি। কিন্তু তাদের স্বার্থে আঘাত লাগার কারণে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ফেসবুকসহ অন্যান্য গণমাধ্যমে আমার পরিবারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রটনা করে আমাকে এবং আমার পরিবারকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করছে। যদি এই জায়গা জোর করে পরিচালনা করা হয় এতে শান্তি বিনষ্ট  ও শান্তি শৃঙ্খলা নষ্ট হবে তাই আমি বিষয়টি আদালতের নজরে নিয়ে আসি। শুধুমাত্র সুন্দরভাবে সামাজিক সমস্যাটি সমাধান হয় সেজন্য মহামান্য আদালতের আশ্রয় নিয়েছি এবং এতে আমার কোন ব্যক্তিগত স্বার্থ নেই। আমি আশা করবো সুন্দর মনের মানুষ এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকেরা আমাকে সহযোগিতা করবেন।
ফোরকানিয়া ও কিন্টারগার্ডেনের সমস্যাটি দীর্ঘদিনের। সমাজের নেতৃত্ব স্থানীয় ব্যক্তিরা কয়েকবারই এ বিষয় নিয়ে বসেছেন কিন্তু কেউ এর সমাধান করতে পারেনি। আমি ভেবেছিলাম সামনের দিনগুলোতে এ সমস্যাটি আরো প্রকট আকার ধারণ না করে, সেজন্য বিষয়টি আদালতকে জানিয়েছি।
এখানে আমার ব্যক্তিগত স্বার্থ নেই এবং আমি কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দাখিল করিনি। আমাদের মুরুব্বিগণ যে সম্পত্তি ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার নামে দান করেছেন, এবং দাতাদের তত্ত্বাবধানেই ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা চলছিল, তাদের স্বপ্ন ফোরকানিয়া মাদ্রাসাটি আবার চালু হোক। কিন্টারগার্ডেনটি যারা পরিচালনা করছেন ওনাদের বারবারই বলা হচ্ছে আপনাদের কিন্টারগার্ডেন টি আপনারা আপনাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তিতে পরিচালনা করুন। কিন্তু দিন দিন তারা দলবদ্ধভাবে অন্যায় ভাবে ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা সম্পদ দখল করে এই স্কুলটি পরিচালনা করে আসছে।
প্রথম উদ্যোক্তা যারা ছিলেন তারা বর্তমানে কিন্টারগার্ডেন পরিচালনা করেন না। তার কারণ বর্তমানে যে লোক গুলো প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছে, তারা এক প্রকার স্কুল টি দখল করে। প্রথম উদ্যোক্তারাও চেয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি অন্যথায় নিয়ে যাবে কিন্তু তাদের বাঁধার কারণে তা করা সম্ভব হয়নি।
ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার ইতিহাস হচ্ছে,  1950 কিংবা তারপরে বর্তমান জায়গাটি উপর একটি মুক্তব প্রতিষ্ঠিত হয় এবং আমাদের সমাজের একজন বিজ্ঞ আলেম তিনি আমার দাদা হন তার তত্ত্বাবধায়নে  প্রতিষ্ঠানটি পরিচালিত হয়।  এই সুবাদে অনেকেই এই মহৎ কাজের সাথে শরিক হওয়ার জন্য ফোরকানিয়া মাদ্রাসা কে সম্পত্তি দান করেন,  সম্পদ দাতাগণ মৌখিকভাবে সম্পত্তি দান করেন। ১৯৯১ সনে এই 16 শতাংশ সম্পত্তি ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার নামে বিএস খতিয়ান ভুক্ত হয়। বর্তমানে জায়গাটি ডিসি অফিসের নামে। জায়গাটি পরিচালনার দায়িত্ব হচ্ছে কমিটির সাধারণ সম্পাদকের।
আমি একজন উত্তরাধিকার হিসেবে এবং সমাজের সচেতন নাগরিক হিসেবে আমার দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হইনি।  আমি যতগুলো কাজ করেছি তার প্রত্যেকটি প্রমাণ এবং ভিডিও সহ অন্যান্য তথ্যাবলী সংরক্ষণে রয়েছে।  আমি দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবৎ অসংখ্যবার নিজ উদ্যোগে সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষকে নিয়ে এই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করেছি এবং শান্তির জন্য সকলকে আকর্ষণ করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছে।  আপনারা জানেন যে সমাজে তরুণ সমাজকে সঙ্ঘবদ্ধ করার জন্য কল্যাণ সংস্থা নামে একটি সংগঠন এবং সেই সংগঠনের মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন অনিয়ম এবং সমাজের বিভাজন না হয় তার জন্য চেষ্টা চালায় কিন্তু সংঘবদ্ধচক্র সে কাজটিও আমাকে করতে  দেয়নি।
বাস্তবতা হচ্ছে দখলদারগন কিছু করে না উঠতে পেরে শুধুমাত্র আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। কিন্তু তারা ভুলে গেছেন সম্মানের মালিক একমাত্র আল্লাহ, তারা যে ন্যাক্কারজনক নাটক চালাচ্ছে তার পরিসমাপ্তি আল্লাহই করবেন।
Please follow and like us:
এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

বিজ্ঞাপন